1. admin@nplustv.com : admin : Shadat Hossain Raju
মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:৩৫ অপরাহ্ন

চাকরি বাঁচাতে কাজে যেতে হচ্ছে’ লকডাউনে

জুবাইদা আক্তার জেবা
  • আপডেট সময়ঃ সোমবার, ২৮ জুন, ২০২১
  • ৩৮৪ বার পড়া হয়েছে

চট্টগ্রাম নগরের মুরাদপুর মোড়ে দাঁড়িয়ে আছেন  এক যুবক। ১২ হাজার টাকা বেতনে তিনি চাকরি করেন অক্সিজেন মোড়ের একটি পোশাক কারখানায়।৫০ টাকা রিকশা ভাড়া দিয়ে চকবাজারের গণি বেকারি মোড় থেকে মুরাদপুর মোড়ে আসেন এই যুবক। কিন্তু তিনি কোনো গণপরিবহন পাচ্ছিলেন না।  তিনি বলেন, ‘গণপরিবহন বন্ধ ঘোষণার সময় সরকার বলেছিল, প্রত্যেক কারখানা নিজস্ব উদ্যোগে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসের ব্যবস্থা করবে। কিন্তু আমাদের কোম্পানি বাসের ব্যবস্থা করেনি। আমরা বেতন পাই কত টাকা? এভাবে গাড়ি ভাড়া, খাবার বিল আর বাসা ভাড়া দেয়ার পর আমরা বাড়িতে আর টাকা পাঠাতে পারব?’ক্ষোভের সঙ্গে এই যুবক বলেন, ‘সরকার যদি স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে চায়, তাহলে সবকিছু বন্ধ করে দিত। কারখানা বন্ধ থাকলে তো আমাদের যাওয়া লাগত না। এখন চাকরি বাঁচানোর জন্য হলেও আমাদের যেতে হচ্ছে। সবকিছু খোলা রেখে গণপরিবহন বন্ধ করে দেয়ায় মনে হচ্ছে সরকার হরতাল দিয়েছে।’শুধু এই যুবক  নয়, তার মত চট্টগ্রাম নগরের বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে সকাল থেকে দাঁড়িয়ে গণপরিবহনের জন্য অপেক্ষা করতে দেখা গেছে চাকরিজীবীদের। এদের মধ্যে রয়েছেন ব্যাংকার, বিভিন্ন বেসরকারি অফিসের চাকরিজীবী, স্বাস্থ্যকর্মী, হোটেল-রেস্তোরাঁর কর্মচারী ও বিভিন্ন জরুরি প্রয়োজনে বের হওয়া জনসাধারণ। গন্তব্যে যাওয়ার ক্ষেত্রে ভোগান্তিতে পড়েছেন সবাই।হাতেগোনা কয়েকটি প্রতিষ্ঠান নিজস্ব উদ্যোগে পরিবহনের ব্যবস্থা করলেও বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের নেই কোনো যানের ব্যবস্থা। আবার ছোটোখাটো কারখানা বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো চাইলেও নিজস্ব উদ্যোগে পরিবহনের ব্যবস্থা করতে পারছে না। কারণ তাদের চাকরিজীবীর সংখ্যা কম, আবার তারা থাকেন নগরের বিভিন্ন জায়গায়। ফলে তাদেরও গন্তব্যে যেতে দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে। এদিকে গণপরিবহন বন্ধ থাকার সুযোগে সড়কে দাপট বেড়েছে রিকশার। নির্দিষ্ট ভাড়ার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি বাড়া নিচ্ছে।রিকশাযোগে বহদ্দারহাট হাট মোড়ে ভাড়া ভাগাভাগি করে দেয়ার শর্তে রিকশায় উঠেন দুই লোক। এ সময় এক বৃদ্ধ বলেন, ‘রাহাত্তারপুল মোড়ে আমার এক আত্মীয় মারা গেছেন। উনার জানাজায় যাচ্ছি। টাকাও বেশি নেই। আবার বয়সের ভারে হাঁটতে পারছি না। অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে আরেকজনকে যোগাড় করে অর্ধেক ভাড়ায় রিকশা দিয়ে যাচ্ছি।’সোমবার (২৮ জুন) থেকে সারাদেশে তিনদিনের সীমিত লকডাউন শুরু হয়েছে। লকডাউনের শুরুতে খুব ভোরে কিছু গণপরিবহন চলতে দেখা গেছে। কিন্তু বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশি তৎপরতায় সেগুলো বন্ধ হয়ে যায়। নগরের বিভিন্ন প্রবেশমুখ বালুছড়া, বায়েজিদ সংযোগ সড়ক, একেখান, মইজ্জারটেক, কাপ্তাই রাস্তার মাথাসহ একাধিক মোড়ে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। এসব চেকপোস্টে গণপরিবহন চলতে দেখলেই আটক করা হচ্ছে। এছাড়াও নগরে সকালে জেলা প্রশাসনের ছয়জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অভিযান পরিচালনা করেন।জানতে চাইলে বায়েজিদ বোস্তামী থানার পুলিশ পরিদর্শক (শহর ও যানবাহন) মো. মঞ্জুর হোসেন  বলেন, ‘সকাল থেকে আমরা বালুছড়া ও বায়েজিদ সংযোগ সড়কের ওমেন ইউনিভার্সিটি এলাকায় দুটি চেকপোস্ট বসিয়েছি। এরমধ্যে আমরা চারটি গাড়ি আটক করেছি এবং ১২টি গাড়িকে মামলা দিয়েছি। সড়কে গণপরিবহন পেলেই আটক করা হচ্ছে।’নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মামনুন আহমেদ অনিক  বলেন, ‘সকালে জেলা প্রশাসনের ছয়জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অভিযান পরিচালনা করছেন। আমি নিজে অক্সিজেন মোড়ে অভিযান পরিচালনা করেছি। এছাড়াও বিকেলে আরও ছয়জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অভিযান পরিচালনা করবেন।’

পোষ্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর পড়ুন
© কপিরাইটঃ- এন প্লাস টিভি (২০২০-২০২২)
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD